সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। বিস্তারিত জানতে : 01712-758460 | প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। বিস্তারিত জানতে : 01712-758460 | প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। বিস্তারিত জানতে : 01712-758460 |
শিরোনাম ::
দুদিনের টানা বৃষ্টিপাতে পাহাড়ধসে খাগড়াছড়ি-বাঘাইছড়িতে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ব্যারিস্টার রফিক উল হক মারা গেছেন তেজগাঁওয়ে এপেক্স কারখানায় ভয়াবহ আগুন প্রতি কেজি আলু আজ থেকে ৩৫ টাকা বিক্রি হবে । পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে পারাপারে অপেক্ষায় সহস্রাধিক যানবাহন যাত্রী দুর্ভোগ । মেখল মাদরাসার সাবেক উস্তাদ, প্রবীণ আলেম মুফতি গোলাম কাদেরের ইন্তেকাল ঘরের বাইরে বের হতে মাস্ক ব্যবহার করুন : প্রধানমন্ত্রী স্পিকারের সঙ্গে বাংলাদেশের নব নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার সাক্ষাৎ ফের যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন আলোচিত ইসি মাহবুব তালুকদার নেতানিয়াহুর পদত্যাগ চায় অর্ধেকের বেশি ইসরাইলি!

শাহবাগে ব্যভিচার ও ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ থেকে ইশার ৮ দফা দাবি

এমসি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৯ বার পড়া হয়েছে

আইন পাশ করে আন্দোলন দমানোর চেষ্টা না করে ধর্ষকদের দ্রুত বিচার কার্যকর করে নজির স্থাপন করার দাবী জানিয়ে শাহবাগে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ চত্বরে জিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশে এ দাবি জানিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, বর্তমানে সরকার বিগত ১ যুগ ধরে ক্ষমতায় রয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় ধর্ষণ আজ মহামারি আকার ধারণ করেছে। সরকারের নজিরবিহীন দূর্বৃত্তায়নের রাজনীতি, অঙ্গ সংগঠন বিশেষ করে ছাত্রলীগ, যুবলীগের আধিপত্যবাদ ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের ধারাবাহিক অধ্যায়।

সমাবেশে ইশা ছাত্র আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় সভাপতি জিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে আট দফা সুপারিশমালা উপস্থাপন করেন।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সেক্রেটারি জেনারেল নূরুল করীম আকরামের সঞ্চালনায় ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মুহাম্মদ আব্দুল জলিল, জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল একেএম আব্দুজ্জাহের আরেফী, প্রশিক্ষণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রিয়াদ, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ইউসুফ আহমাদ মানসুর, প্রচার ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক কে এম শরীয়াতুল্লাহ, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক এম এম শোয়াইব, প্রকাশনা সম্পাদক এইচ এম সাখাওয়াত উল্লাহ, অর্থ ও কল্যাণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইবরাহিম হুসাইন, কলেজ সম্পাদক এম হাসিব গোলদার, কওমি মাদরাসা সম্পাদক নূরুল বশর আজিজী, স্কুল সম্পাদক মাহমুদুল হাসান, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক মশিউর রহমান, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম, সদস্য সুলাইমান দেওয়ান সাকিব। এছাড়াও ঢাকাস্থ বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ ও নগর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে ইশা ছাত্র আন্দোলন-এর ৮ দফা সুপারিশমালা-

এক. দেশের সর্বস্তরের নারী ও পুরুষদের প্রতি আহ্বান-
পুরুষরা নারীকে সম্মান করুন। দৃষ্টি অবনত রাখুন ও নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করুন। অবৈধ সম্পর্ক নয়; বরং বৈবাহিক বৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে নারীত্বের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করুন। নারীগণ চাল-চলন ও পোষাকে শালীনতা বজায় রাখুন। দেশীয় ও মুসলিম সংস্কৃতি পরিপন্থী আচরণ পরিহার করুন। বিবাহবহির্ভূ সম্পর্ক, পরকীয়া ও প্রেমের সম্পর্ক থেকে বিরত রাকুন।

দুই. পরিবার ও সমাজের প্রতি আহ্বান-
আপনার সন্তানকে ধর্মীয় অনুশাসন ও নৈতিক মূল্যবোধ শিক্ষা দিন। সৎসঙ্গে উৎসাহিত করুন। বিবাহ বন্ধনকে সহজ করে তুলুন। যৌন, মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের বিরুদ্ধে ঘৃণা সৃষ্টি ও অপরাধীকে সামাজিকভাবে বয়কট ও প্রতিরোধ গড়ে তুলুন।

তিন. শিক্ষকইমাম ও জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান-
যিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ বন্ধে শিক্ষকগণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে, ইমামগণ মসজিদের মিম্বার থেকে সামাজিক সচেতনতা ও জনমত গঠনে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করুন। জনপ্রতিনিধিগণ ধর্ষককে আর্থিক লেনদেন, আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া থেকে বিরত থাকুন এবং নিপীড়িতকে বিচার পেতে ভূমিকা পালন করুন।

চার. বিচারক ও আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিতদের প্রতি আহ্বান-
ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে আইনের শাসন বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ কার্যকরি শক্তি রয়েছে আপনাদের হাতে। তাই নিপীড়িতের প্রতি সদয় হোন এবং অপরাধীকে বিচারের মুখোমুখী করতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। ধর্ষনের মামলায় আরোপিত ফি বাতিল এবং শুধু আইনের নীতিগত অনুমোদন নয়; বরং দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল ও শরীয়া আইনের মাধ্যমে ধর্ষনের শাস্তি কার্যকর করুন।

পাঁচ. মিডিয়া ও গণমাধ্যম ও ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান-
ধর্ষণ ও ব্যভিচারে উস্কানিমূলক নাটক-সিনেমা, কমিক্স ও বিজ্ঞাপন প্রদর্শনী বন্ধ করুন। অবাধ যৌনাচার, অবৈধ সম্পর্ক, পরকীয়া, লীভ-টু-গেদার তথা অবৈবাহিক সম্মতিসূচক যৌন সম্পর্ক ও নারীকে পন্যরূপে উপস্থাপন থেকে বিরত থাকুন। পর্নোগ্রাফি, অশ্লীল ওয়েব সাইট, ওয়েব সিরিজ এবং ভারতীয় ও পশ্চিমাসহ ভিনদেশী অপসংস্কৃতি বিস্তার, ইতিবাচকভাবে প্রচার বন্ধ করতে কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

ছয়. আইন প্রনেতাদের প্রতি বৃটিশ প্রবর্তিত ১৮৬০সালের দন্ড বিধির ধারা ৩৭২, ৩৭৩, ৩৭৫, ৩৭৬, ৪৯৭ এবং ৪৯৮ ধারাগুলো ধর্ষনের পৃষ্ঠপোষকাতায় অনেকাংশে ভূমিকা পালন করে। এক্ষেত্রে এ ধারাগুলো পরিবর্তন করতে হবে এবং শরীয়াহ বোর্ডের মাধ্যমে নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে।
সাত. সরকারের প্রতি আহ্বান-
মাদক উৎপাদক, আমদানী, বৈধাবৈধ মদের বার, নাইট ক্লাব, স্পা এবং সকল প্রকার পতিতাবৃত্তি বন্ধ করুন।

আট. সর্বোপরি দেশের বিচারব্যবস্থা, সরকার ও বিরোধী দলের প্রতি সারাদেশে সরকারের ছত্রছায়ায় যিনা ব্যভিচার ও ধর্ষকদের উৎপাদন কারখানা বন্ধ করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারী দল, বিরোধী দল শিক্ষক রাজনীতিবীদ, সকল দায়িত্বশীলদের ব্যক্তিদের ঐক্য বদ্ধ ভাবে এ মহামারী থেকে রক্ষা পেতে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2018 mcnewsbd24.Com
Customized by Mcnewsbd24.Com